bangla pdf books

পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download free

নাম:- পারসোনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download

লেখক:- ডেল কার্নেগী। 

ধরণ:- আত্ম উন্নয়ন। 

পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download বইয়ের প্রথম কিছু অংশ:- 

গােড়ার কথা আপনাদের কথাটা হয়তাে বিশ্বাসই হবে না। অবশ্য সেটা সাধারণভাবে বিশ্বাস না হওয়ারই কথা যে, পৃথিবীতে যথাযথভাবে জীবন কাটাতে গেলে চারটি বিশেষ পথ অবলম্বন করা দরকার।

এই চারটে বিষয় ধরেই প্রত্যেক মানুষের আসল মূল্যবােধের পতিফলন। ঘটে। অন্যেরাই সে বিচার করে জেনে রাখা চাই।

পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস

বিষয় চারটি কি?

১। আমরা কি করি?

২। আমাদের বাহ্যিক আকৃতি কি?

৩। আমরা কিভাবে কি কথা বলি?

৪। আমাদের সেই বলার পদ্ধতি কি রকম?

পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download

একটু ভেবে দেখুন কথাগুলাে, ভাবলেই পরিষ্কারভাবে বুঝতে পারবেন মানুষকে এই প্রতিযােগিতাপূর্ণ বিশ্বে নিজের স্থানটি ঠিক মতাে আয়ত্ত করতে অমানুষিক পরিশ্রম করতে হয়। আর সে কাজ করার জন্য উপরের চারটি বিষয়ই হলাে সবচেয়ে মনে রাখার মতাে।

এসব পদ্ধতিগত ব্যাপারে না ঢুকেও বলা যায় উপরের বিষয়গুলােই একজন সফল মানুষের সব সাফল্যের গোড়ার কথা।

কথাটা অবশ্য এভাবে না বলাই ঠিক : কারণ এই বিষয়গুলাে কোনাে পদ্ধতি নয়, আসলে কাউকে বিচার করার পথ মাত্র। এই পথ দিয়েই একজন সফল মানুষের বিচার সম্বৰ।

কিন্তু বিচার করার ফলশ্রুতি কি? এ প্রশ্নও করা স্বাভাবিক। আসলে এগুলাে থেকেই একজন পরিপূর্ণ মানুষের সঠিক পরিচয় পেতে পারে সবাই। কি বলতে চাই নিশ্চয়ই সকলে উপলদ্ধি করতে পেরে থাকবেন।

হ্যা, একজন সরল মানুষের সাফল্যের গােড়ার সেই কথাটাই বলতে চাইছি। অর্থাৎ, চারটি বিষয়ের অর্থ হলাে একজন মানুষের সঠিক ব্যক্তিত্ব প্রকাশের চাবিকাঠি।

এই পৃথিবীতে মানুষের সংখ্যা কতাে? অন্তত কয়েক শত কোটি তাে বটেই, এতাে একজন স্কুলের ছাত্রও জানে। অথচ ভাবলেও অবাক হতে হয়, সেই কোটি কোটি মানুষের মধ্যে সফলতার মুখ দেখেন ক’জন? দেশে দেশে এমন মানুষের সংখ্যা জনসংখ্যার অনুপাতে বড়ই নগণ্য। তাই না?

এ কথা তাই সকলের স্বীকার করা উচিত, সফলতা তাদেরই আসে যারা সঠিকভাবে তাদের জীবনকে পরিচালনা করতে পারেন। সেই জীবনকে পরিচালনা করে এগিয়ে নিতে তারাই পারেন, জীবনের নানা ঘাত প্রতিঘাত আর বাধাবিপত্তিকে যারা অনায়াসে জয় করতে পারেন।

সবাই তা পারে না কেন? এখানেই আসছে ব্যক্তিত্বের কথা। সকলের ব্যক্তিত্ব কখনই সমানভাবে স্কুরিত হয় , হতে পারে না।

এর মধ্যে অবশ্যই আরও কিছু বিষয়ের অবতারণা কেউ কেউ করে থাকেন। ব্যক্তিত্ব প্রকাশ আর সাফল্যের জন্য এটাও অনেকটাই কাজ করে অনেকেরই ধারণা। সেটা আসলে কি?

সঙ্গত প্রশ্ন, তাতে দ্বিমত নেই। সেটা হলাে ভাগ্য। অনেকেই বলে থাকেন, ভাগ্য সহায় থাকলে অনেকখানি কাজ এগিয়ে দিতে পারে। কিন্তু পৃথিবীর অসংখ্য কৃতী, সফল মানুষের জীবনী পর্যালােচনা করুন একবার, দেখতে পাবেন যে সেখানে ভাগ্যের কোনাে স্থান নেই। বিশ্বের বহু মানুষই সামান্য অবস্থা থেকে শুধুমাত্র প্রত্যয় আর ব্যক্তিত্বের জোরেই সাফল্য লাভ করে স্মরণীয় হয়েছেন।

সেখানে দারিদ্র্য তাদের অগ্রগতি রােধ করতে পারেনি। বহু খ্যাতিমান মানুষ চরম দারিদ্র্যে প্রথম জীবন কাটিয়েও শেষ পর্যন্ত খ্যাতি এবং প্রাচুর্যের শিখরে উঠেছেন।

এ ব্যাপারে একজনের নাম বলতে পারি। আপনাদের মধ্যে অনেকেই তার একনিষ্ঠ তিনি হলেন বিখ্যাত ইংরেজ ঔপন্যাসিক এইচ. জি. ওয়েলস। নিজের ব্যক্তিত্ব অধ্যবসায় আর পরিশ্রমের জোরেই তিনি খ্যাতি লাভ করেছিলেন, সফল হয়েছিলেন একজন মহান সাহিত্যিক হিসেবে।

এরকম আর একজন মানুষ ছিলেন আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিঙ্কন। ব্যক্তিত্বই ছিল তার সাফল্যের মূল চাবিকাঠি। এরকম আরও অসংখ্য মানুষেরই নাম করা যায় যারা তাদের জীবনে সেই চারটি বিষয় কাজের ক্ষেত্র উৎকর্ষের চরমতম শিখরে নিতে পেরেছিলেন।

এমনই আর একজন ছিলেন ফরাসী সম্রাট, নেপােলিয়ান যার তুলনা ছিল না। সেনাবাহিনীর প্রত্যেকে তাঁকে অসম্ভব রকম শ্রদ্ধা করতেন। নেপােলিয়ানের এই অসাধারণ চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য অদ্ভুতভাবেই শেষ পর্যন্ত থেকে যায়। শেষ পর্যন্ত শত্রুপক্ষের অর্থাৎ ইংরেজদের হাতে বন্দি হয়েও তার ব্যক্তিত্ব উজ্জ্বল থেকে যায়।

শােনা যায় নেপােলিয়ানকে বন্দি করে সেন্ট হেলেনায় নিয়ে যাওয়ার সময় ইংরেজ সেনারা তাঁকে অভিবাদন জানায় তাঁর অস্বাভাবিক ব্যক্তিত্বে মুগ্ধ হয়ে। ঠিক এ রকমই আবার লক্ষ করা গেছে, তুর্কী সেনাধ্যক্ষ আর অবিসম্বাদিত নেতা কামাল আতাতুর্কের ক্ষেত্রেও।

একটা কথা তাই মনে রাখা দরকার। আর তা হলাে, যে কোনাে মানুষের জীবনে ব্যক্তিত্বই হলাে সাফল্যের মূল কথা। আর সেই কারণেই সেই ব্যক্তিত্ব প্রকাশ করাই আসল কাজ।

আবারও সেই চারটি বিষয়ের উল্লেখ করতে হয়। ওই চারটি বিষয়ের উপর নির্ভর করেই গড়ে ওঠে যে কোনাে মানুষের ব্যক্তিত্ব, আর তারই পরে স্বভাবতই এসে পড়ে সাফল্য। আরাে কিছু বিষয় নিয়েও আলােচনা দরকার, কারণ এই ব্যক্তিত্ব যেমন গড়ে তুলতে পারা সম্ভব, সেভাবে একজনের বাহ্যিক আকৃতির পরিবর্তন কি সম্ভব?

আব্রাহাম লিঙ্কনের কথাটাই ধরুন। লিঙ্কন সুপুরুষ ছিলেন না। এজন্য তাঁর ব্যক্তিত্ব স্ফুরণের কোনাে রকম অসুবিধা হয়নি, কারণ ব্যক্তিত্ব কেবলমাত্র বাইরের আকৃতির উপর নির্ভর নয়।

অনায়াসেই  ব্যক্তির মধ্যে এমন কিছু থাকে যা অনায়াসেই হাজার হাজার মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে তাদের বশে আনা সম্ভবপর। ব্যক্তিত্বহীন মানুষ কদাচিৎ সফল হতে পারে। পৃথিবীর যে কোনাে দেশের ইতিহাস ঘাটলেই ঐ কথার সত্যতা আপনাদের চোখে পড়বে এতে সন্দেহ নেই।

একবার ইংল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ডিসরেলীর গ্ল্যাডস্টোনের কথাটা ভাবুন। ব্যক্তির জোরেই তাঁরা ইতিহাসে খ্যাতিমান বলে পরিচিত হয়েছিলেন। সাফল্য তাঁদের অনুসরণ করেছিল সারা জীবন।

নিজের ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে অসম্ভব সচেতন ছিলেন জার্মানির প্রধানমন্ত্রী বিসমার্ক। তাঁর এই ব্যক্তিত্বই তার অস্বাভাবিক জনপ্রিয়তা আর সাফল্যের মূল কথা তাতে কোনাে রকম সন্দেহ নেই কারও।

ব্যক্তিত্বের প্রকাশ ঘটে কেমন করে, এ কথার উত্তর আগেই চেষ্টা করেছি। মানুষ আর পশুর মধ্যে তফাৎ হলাে, মানুষ ব্যক্তিত্বের মধ্য দিয়ে সহজেই ক্ষমতা দখল করতে পারে অথচ পশুর একমাত্র সম্বল তার দৈহিক শক্তি।

ব্যক্তিত্বের মধ্যে কখনাে আকাঙ্ক্ষাকে জড়িয়ে ফেলা সমীচীন হবে না। অনেক বিখ্যাত ব্যক্তির মধ্যে ব্যক্তিত্ব থাকা সত্ত্বেও অহংকার তাদের বেশি এগুতে দেয়নি, এনেছে পতন। কলম্বাসের কথাই এক্ষেত্রে উল্লেখ করা যায়।

কথাটায় হয়তাে কিছুটা সত্যতার প্রকাশ ঘটে। ব্যক্তিত্ব কথাটা কেবল অপর কাউকে জয় করাই বােঝায় না। ব্যক্তিত্ব এমন একটা শক্তি যার প্রকাশে মানুষ আপনা আপনিই বশ হয়ে যায়। শুধু সুইচ টিপলেই যেমন আলাে জ্বলে উঠতে পারে তেমনভাবে ব্যক্তিত্ব আচমকা কারও মধ্যে এসে যায় না। ব্যক্তিত্ব ধীরে ধীরে গড়ে ওঠে, তার জন্য অনেক মেহনতও করা চাই।

দুনিয়ায় বেঁচে থাকতে গিয়ে মানুষ সবচেয়ে বেশি মাথা ঘামাতে চায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার কাজে।

হ্যা, প্রতিষ্ঠিত বলছি খেয়াল রাখবেন। সুপ্রতিষ্ঠিত নয়। প্রতিষ্ঠিত মানুষ আর সুপ্রতিষ্ঠিত মানুষের মধ্যে অনেকটাই ফারাক। সকলের পক্ষে সুপ্রতিষ্ঠা লাভ আদপেই সম্ভবপর হয় না, যেমন সেনাধ্যক্ষ একজন, অথচ সেনা অনেক, সকলেই সেনাধ্যক্ষ হতে পারে না। কিন্তু এমন হওয়ার কারণ কি?

এ প্রশ্নের জবাব গােড়াতেই দিতে চেয়েছি-ব্যক্তিত্ব। হ্যা, সকল প্রতিষ্ঠিত মানুষের প্রধান হাতিয়ার হলাে তার ব্যক্তিত্ব। ব্যক্তিত্বই একজন মানুষের সাফল্যের মূল কথা।

এ পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download  বইয়ে মানুষের ব্যক্তিত্বকে গড়ে তােলার কথাই তাই বলতে চাওয়া হয়েছে। ব্যক্তিত্ব অনায়াসলভ্য কখনই নয়। তাই এটা গড়ে তােলার কাজে চাই আত্ম-বিশ্লেষণ।

সমস্ত ক্রটি, নানা অসুবিধা আর বাধা জয় করার মধ্য দিয়েই আসে প্রকৃত সাফল্য, আর সে সাফল্য লাভ করে ব্যক্তিত্বই হয় তার প্রধান সহায়। পৃথিবীতে এরকম অসংখ্য কৃতী, বিখ্যাত ব্যক্তি আছেন যাদের জীবনী আলােচনা করলেই একথার সত্যতা প্রকট হয়ে পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download বইটি পড়বে।

তাই আসুন বৃথা সময় নষ্ট না করে পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download বইটি পড়তে আরম্ভ করি। কে বলতে পারে আগামী ভবিষ্যতে আপনিও আপনার নিজের ক্ষেত্রে একজন প্রকৃত সফল ব্যক্তিত্বের অধিকারী হয়ে উঠবেন না? কারণ অনেকেই হয়েছেন।

আমাদের পরিশ্রম তখনই সার্থক হবে, সামান্যতম সহায়তাও যদি আপনার ব্যক্তিত্ব গড়ে তােলার ক্ষেত্রে করতে পারি।

তাহলে আবার আগ্রহী হয়ে থাকলে পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download  বইখানার পাতা উল্টে পড়ে ফেলুন আর তারপর দেখে নিন আপনি এ থেকে কতােখানি সহায়তা পেতে পারেন।

পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download অধ্যায় ১

মানসিক ঝাকুনি ▶

মানুষিক ঝাকুনি আসলে কী, তা হলাে আপনার আগ্রহ জাগছে? এই বই হাতে নিয়ে আপনি পাতা উল্টে চলেছেন? আপনার মানুষিক যে আগ্রহবােধ সৃষ্টি হয়েছে। এটাই হলাে মানুষিক ঝাকুনি। আপনি  পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download বইটি পড়তে আগ্রহবােধ করেছেন।

আপনি কি সত্যিই আগ্রহী?

আপনি হয়তাে বলবেন, শুধু একটু দেখে নিতে চাই। প্রতিদিন এরকম ডজন ডজন বই বাজারে আসছে-যেসব বই লিখেছেন মনােবিজ্ঞানী আর নামী ডাক্তাররা। আপনার তাই বক্তব্য হবে নতুন আর জানার কিছুই নেই অন্তত কাজে লাগার মতাে।

সে যাই বলুন,  পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download বইখানা আপনি হাতে নিয়েছেন। যেহেতু আপনার একটু আগ্রহ সঞ্চার হয়েছে বলেই।

আপনার এটা মনে হয়েছে যে, মনকে তৈরি করার মধ্যে কিছু বস্তু থাকে। ব্যাপারটা কখনই কোনাে পাগলামি নয়, যেমন লােকে বলে। এর ফল কেমন তা তাে রােজকার জীবনেই দেখতে পাবাে।

যেসব মানুষকে ঈর্ষা করেন তাদের ব্যাপারটা কেমন? মনে মনে বা সত্যিই কি কখনও যাকে প্রশংসা করেন তাকে বলেননি : কি করে এসব পারেন? আপনার মতাে এতাে তাড়াতাড়ি তাে ভাবতেই পারি না, ঠিক ঠিক তাে নয়ই। বেশি করে ভালাে কাজ করে উপরওয়ালাকে সন্তুষ্টও করতে পারি না। আপনার মতাে চমৎকার খেলতেও পারি না, কোনাে কাজেই দেখি আপনার অসুবিধে বা ঝামেলা হয় না।

সন্তুষ্ট করা কঠিন, তেমন মানুষকেও আপনি বাগে আনতে পারেন। আপনি কোনােভাবেই শত্রু তৈরি করেন না। কখনও অসৎ কাজ করেন না, আপনি ভেঙেও পড়েন না। আপনি সফলতার প্রতীক, প্রত্যেকেই সেটা বােঝে। এর রহস্যটা কি জানার জন্য আমার সব কিছু দিতে রাজি আছি।

এটা পৃথিবীর প্রাচীনতম জিনিসের মধ্যে একটি। এটাকে বলে মন তৈরি করা। এটার শুরু মানুষ যখন মন পরিষ্কার করে আর তা কাজে লাগানাের কথা ভাবে। সারা জীবন ধরেই আপনি মনকে তৈরি করছেন। বাড়িতে, স্কুলে, কলেজে, অফিসে বা যখন বন্ধুদের সঙ্গে থাকেন। আপনি সজাগ অবস্থায় যা কিছু করেন পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download.  

তাতেই মনকে ব্যবহার করে চলেন। তাতে তৈরি হয় চিন্তার অভ্যাস। আবেগের অভ্যাস ওই রকম সব কিছু।

অবশ্য এটাও ঠিক সব কিছুর জন্যই বিশেষজ্ঞ থাকেন। তারা অনেকটা অগ্রসর হন। তাঁরা চান বেশ সুগঠিত প্রবল ক্ষমতার মন। তাঁরা সাধারণ মন নিয়ে খুশি হন। তাদের লক্ষ্য হলাে বেশ পৃষ্ঠ মানসিক পেশী। এইরকম মন নিয়ে তারা মনকে ইচ্ছেমতাে ভারসাম্যে সার্কাসি খেলা লাগিয়ে জীবনে চমক্কার সাফল্য আনেন।

এখানে তাদের সেই মন তৈরি করার কৌশলই কাজে লাগাতে চাওয়া হয়েছে। তারা মনকে এমনভাবে কাজে লাগান যাতে মন এক সময় শুধু একটা বিষয়ই বহুক্ষণ ধরে ভেবে চলতে পারে। হিমালয়ের কিছু মনিষী, গবেষক ও সন্ন্যাসির কথা শুনেছি। তাঁদের মনের সব কিছু উজাড় করে ঢেলে দিয়ে বহুক্ষণ এইভাবে রেখে দিতে পারেন।

তবে আপনি হয়তাে বলবেন, ওই অর্থে মন-গবেষক হতে চাই না আমি। এসব করার মতাে আমার সময় নেই। আমি সাধারণ মানুষ, যাকে জীবন বাঁচাবার তাগিদেই ব্যস্ত থাকতে হয়। এতে আমার সব সময় চলে যায়। সারাদিনে সকাল আর বিকেলে আধ ঘণ্টার মতাে সময়ই আমার নিজের বলা যায়। 

আমার তাই ওই সার্কাসি কায়দায় মন চালনা করার মতাে ধৈর্য, সময় বা শক্তি নেই। আমি মন-বীর হতে চাই । অতএব ধন্যবাদ, এখানেই ইতি টানছি। তবে যাই হােক আমার কাজকর্ম কি করে আরও সুষ্ঠুভাবে করা যায় সেটা জানতে আপত্তি নেই। আমি আরও টাকা রােজগার করতে চাই। আমাকে উঠতেই হবে, আমি ব্যর্থ হতে চাই না। 

আমি আমার জীবনে সাফল্য আনবােই। আমি দেখেছি, যে মানুষের মাথা আছে (অবশ্য সে সেটাকে খাটাতে পারলে) সে যা চায় তাই পায়। আমি এটাও দেখেছি, মস্তিষ্ক, মন বা আর যা কিছুই বলুন, চালাবার এক সঠিক আর বেঠিক পথ আছে। মনকে শিক্ষাদান করার মধ্যে একটা কিছু আছে, এ ব্যাপারে আমি নিশ্চিত।

আমি অবশ্য কোনাে মন বিষয়ক খেয়ালী হতে চাইছি না। কি বলতে চাই বুঝেছে নিশ্চয়ই কোনাে খেলােয়াড়, খেতাব আকাক্ষী লড়াইপ্রিয় চ্যাম্পিয়নের মতাে কিছু । আমি যা চাই তা হলাে, আমার অফিসের কাজকর্ম ভালােভাবে করার জন্য যথেষ্ট দক্ষতা। আমি কাজে দক্ষ হতে চাই। 

ভবিষ্যতে একদিন আমি দপ্তরের প্রধান হতে চাই। আমার অবসর তেমন নেই, তাই তেমন পরিশ্রমসাধ্য কোনাে কাজ যদি করতে বলেন, বরং দিনে কয়েকটা মিনিট দিলে যদি হয় তাহলে এই মনকে নাড়া দেবার ব্যাপারটা দেখতে পারি। পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download. 

পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download বইয়ের ডাউনলোড লিংক :- 

পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf বইটির হার্ড কফি ক্রয় করুন:- 

Rokomari.com  boibazar.com | aladils.com

🔥পারসােনালিটি সাকসেস অ্যান্ড হ্যাপিনেস pdf download বইটির রিভিউ দিতে (ক্লিক_করুন

Tags

ADR Dider

Best bangla pdf download, technologies tips,life style and bool, movie,smartphone reviews site.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close
Close

Ad blocker detected

Plz turn off your ad blocker to continue in this website...